ক্ষারত্ব ও খরতা বলতে কী বোঝায়? মাছচাষে এর প্রভাব কী?

1 answer

Anonymous December 20, 2014

পানিতে বিভিন্ন ক্ষার (বাই-কার্বনেট, কার্বনেট)-এর ঘনত্ব হলো ক্ষারত্ব। আর ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মোট ঘনত্ব হচ্ছে খরতা। খরতা ক্যালসিয়াম কার্বনেটের পরিমাণ দিয়ে প্রকাশ করা হয়। মোট খরতার পরিমাণ মোট ক্ষারত্বের সাথে সম্পর্কিত। মাছ ও চিংড়ি চাষে উপযোগি ক্ষারত্ব মাত্রা ৭০-১৬০ মি.গ্রা./লিটার এবং খরতা ২০-১০০ মি.গ্রা./লিটার। পুকুরের পানির মোট ক্ষারত্ব নূন্যতম ৪০.০০ মি.গ্রা./লিটার থাকা বাঞ্চনীয়। ক্ষারত্ব কম হলে পানিতে দ্রবীভূত পুষ্টির অভাব দেখা দেয় এবং বৃদ্ধি পেলে পুষ্টি উপাদান বৃদ্ধি পায় ও মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়।
 
ক্ষারত্ব ও খরতার প্রভাব
মাছ ও চিংড়ি চাষের জন্য হালকা খর পানি সবচেয়ে ভাল। ক্ষারত্ব ও খরতার কাঙ্ক্ষিত মানের চেয়ে খুব কম বা বেশি হলে-

  • পানির বাফারিং ক্ষমতা কমে যায়, ফলে পিএইচ দ্রুত উঠানামা করে;
  • পুকুরে সার দিলে তা আশানুরূপ কার্যকর হয় না;
  • চিংড়ি খোলস বদলাতে পারে না;
  • ক্ষারত্ব ৩০০ মিগ্রা/লিটারের বেশি হলে পুকুরের প্রাথমিক উৎপাদন হ্রাস পায়, কারণ এ অবস্থায়
    • লোকসংশ্লেষণের জন্যে প্রয়োজনীয় কার্বন ডাই-অক্সাইড থাকে না;
    • মাছ সহজেই অম্লত্ব ও অন্যান্য ধাতুর বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়;

ক্ষারত্ব ও খরতার নিয়ন্ত্রন
পুকুরে নিয়মিত চুন অথবা জিপসাম প্রয়োগ করে খরতা ও ক্ষারত্ব কাঙ্ক্ষিতমানে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
তথ্যসূত্র: DoF

#1

Please login or Register to Submit Answer

Latest Q&A

Like our FaceBook Page to get updates



Are you satisfied to visit this site? If YES, Please SHARE with your friends

To get new Q&A alert in your inbox, please subscribe your email here

Enter your email address:

Delivered by FeedBurner