মাছের ক্ষত রোগের লক্ষণ কী কী এবং এর প্রতিকারই বা কী?

QuestionsCategory: Aquacultureমাছের ক্ষত রোগের লক্ষণ কী কী এবং এর প্রতিকারই বা কী?
Anonymous asked 4 years ago

*

2 Answers
Anonymous answered 4 years ago

সাধারণত শোল, গজার, টাকি, পুঁটি, বাইন, কৈ, মেনি, ম্রিগেল, কার্পিও এবং পুকুরতলায় বসবাসকারী অন্যান্য প্রজাতির মাছে ক্ষত রোগ দেখা দেয়। আক্রান্ত মাছের গায়ে ক্ষত বা ঘাজনিত লাল দাগ দেখা যায়। এই দাগের আকৃতি ক্রমেই বৃদ্ধি পেতে থাকবে। ঘায়ের স্খানে চাপ দিলে কখনো কখনো পুঁজও বের হতে দেখা যায়।
রোগাক্রান্ত মাছ পুকুর থেকে তাৎক্ষণিকভাবে তুলে ফেলতে হবে। ১০ লিটার পানিতে ১০০ গ্রাম লবণ গুলে লবণমিশ্রিত পানিতে রোগাক্রান্ত মাছ পাঁচ থেকে দশ মিনিট ডুবিয়ে রেখে অত:পর পুকুরে ছেড়ে দিতে হবে। 
ক্ষত রোগে আক্রমণের আগেই প্রতি বছর আশ্বিন মাসের শেষে কিংবা কার্তিক মাসের প্রথম দিকে পুকুরে শতাংশ প্রতি ১ কেজি হারে পাথুরে চুন ও ১ কেজি হারে লবণ প্রয়োগ করা হলে সাধারণত আসন্ন শীত মৌসুমে ক্ষত রোগের কবল থেকে মাছ মুক্ত থাকে। এ রোগ নিরাময়ের জন্য ০.০১ পিপিএম চুন ও ০.০১ পিপিএম লবণ অথবা ৭-৮ ফুট গভীরতায় প্রতি শতাংশ জলাশয়ে ১ কেজি হারে পাথুরে চুন ও ১ কেজি হারে লবণ প্রয়োগ করা হলে আক্রান্ত মাছ দুই সপ্তাহের মধ্যেই আরোগ্য লাভ করে।

Anonymous answered 4 years ago

সিলভার কার্প মাছেও ক্ষত রোগ হতে পারে।
এই মাছে ক্ষত রোগের লক্ষণ ও কারণ –
উপকূলীয় অঞ্চলে মাছ চাষের পুকুর বন্যায় প্লাবিত হলে ক্লোরোইডের অস্বাভাবিক বৃদ্ধির (৩০ পিপিএম এর অধিক) ফলে কেবল মাত্র সিলভার কার্প মাছে দ্রুত ক্ষতরোগ দেখা দেয়।

চিকিৎসা ও ঔষধ প্রয়োগ-
আক্রান্ত পুকুরের তিন ভাগের দুই ভাগ পানি মিঠাপানির দ্বারা পরিবর্তন করা এবং প্রতি শতাংশ জলাশয়ে ২টি হারে চালতা ছেঁচে সারা পুকুরে ছড়িয়ে দিতে হবে।

NurulAbsar7283 replied 8 months ago

com