QuestionsCategory: Aquacultureবাগদার হোয়াইট স্পট রোগ দেখা দিলে করনীয় কী?
Asadullah asked 2 years ago
বাগদার হোয়াইট স্পট রোগ দেখা দিলে করনীয় কী?
1 Answers
BdFISH Answer Team Staff answered 2 months ago

হোয়াইট স্পট রোগ, যা হোয়াইট স্পট সিন্ড্রোম ভাইরাস (ডব্লিউএসএসভি) নামেও পরিচিত, এটি একটি অত্যন্ত সংক্রামক এবং বিধ্বংসী ভাইরাল সংক্রমণ যা চিংড়িকে প্রভাবিত করে, বিশেষ করে একুয়াকালচারের ক্ষেত্রে। এখানে চিংড়িতে সাদা দাগ রোগের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেয়া হল-
কার্যকারক এজেন্ট: হোয়াইট স্পট রোগটি হোয়াইট স্পট সিনড্রোম ভাইরাস (ডব্লিউএসএসভি) দ্বারা সৃষ্ট হয়, যা নিমাভিরিডে পরিবারের অন্তর্গত। এটি প্রাথমিকভাবে প্যাসিফিক সাদা চিংড়ি (লিটোপেনিয়াস ভ্যানামেই) এবং কালো বাঘ চিংড়ি (পেনিয়াস মনোডন) সহ পেনাইড চিংড়ি প্রজাতিকে প্রভাবিত করে।
সংক্রমণ: ডাব্লুএসএসভি দূষিত জল, সংক্রামিত চিংড়ি এবং ক্রাস্টেসিয়ান, মলাস্ক এবং অন্যান্য জলজ প্রাণীর মতো বাহকসহ বিভিন্ন উপায়ে চিংড়ির জনসংখ্যার মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। ভাইরাসটি পরিবেশে দীর্ঘ সময়ের জন্য বেঁচে থাকতে পারে, যার ফলে এর বিস্তার নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে।
ক্লিনিকাল লক্ষণ: সংক্রমিত চিংড়ি সাধারণত বহিঃকঙ্কাল, উপাঙ্গ এবং ফুলকাগুলিতে বৈশিষ্ট্যযুক্ত সাদা দাগ বা ছোপ দেখায়, যা রোগটির নাম দেয়। অন্যান্য ক্লিনিকাল লক্ষণগুলির মধ্যে অলসতা, খাবার গ্রহণে অনাগ্রহ, সাঁতারের অস্বাভাবিক আচরণ এবং শেষ পর্যন্ত উচ্চ মৃত্যুর হার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।
প্রভাব: হোয়াইট স্পট রোগ উচ্চ মৃত্যুর হার, হ্রাস বৃদ্ধির হার, খাদ্য রূপান্তর দক্ষতা হ্রাস এবং গৌণ সংক্রমণের জন্য সংবেদনশীলতা বৃদ্ধির কারণে চিংড়ি চাষে উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ক্ষতির কারণ হতে পারে। WSSV এর প্রাদুর্ভাব সমগ্র চিংড়ির খামারকে ধ্বংস করে দিতে পারে, যার ফলে কৃষকদের আর্থিক ক্ষতি এবং বিশ্বব্যাপী চিংড়ি উৎপাদনে ব্যাঘাত ঘটতে পারে।
রোগ নির্ণয়: চিংড়িতে সাদা দাগের রোগ নির্ণয়ের জন্য সাধারণত হিস্টোপ্যাথলজিকাল পরীক্ষা, পলিমারেজ চেইন রিঅ্যাকশন (পিসিআর) অ্যাসেস এবং সংক্রামিত চিংড়ির টিস্যুতে ভাইরাসের উপস্থিতি সনাক্ত করার জন্য অন্যান্য আণবিক কৌশল অন্তর্ভুক্ত থাকে। প্রাদুর্ভাবের প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং ব্যবস্থাপনার জন্য দ্রুত ডায়াগনস্টিক পরীক্ষা অপরিহার্য।
প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ: WSSV এর প্রবর্তন এবং বিস্তার রোধ করা চিংড়ি জলজ চাষে সাদা দাগ রোগ পরিচালনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কঠোর বায়োসিকিউরিটি প্রোটোকল, নতুন চিংড়ি মজুদের স্ক্রিনিং এবং কোয়ারেন্টাইনিং, সরঞ্জাম এবং জলের উত্সগুলি জীবাণুমুক্ত করার মতো ব্যবস্থা এবং সর্বোত্তম ব্যবস্থাপনা অনুশীলনগুলি সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। উপরন্তু, রোগের প্রভাব প্রশমিত করার জন্য WSSV-প্রতিরোধী চিংড়ির স্ট্রেন এবং অ্যান্টিভাইরাল চিকিৎসার উন্নয়নে গবেষণা চলছে।
নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থা: জীবিত চিংড়ি এবং চিংড়ি পণ্যের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের মাধ্যমে হোয়াইট স্পট ডিজিজ এবং অন্যান্য জলজ রোগজীবাণুগুলির বিস্তার রোধ করার জন্য অনেক দেশে প্রবিধান এবং প্রোটোকল রয়েছে। বিশ্বব্যাপী চিংড়ি জলজ শিল্পের স্বাস্থ্য এবং স্থায়িত্ব বজায় রাখার জন্য এই নিয়মগুলির সাথে সম্মতি অপরিহার্য।
সামগ্রিকভাবে বলা যায় হোয়াইট স্পট ডিজিজ বিশ্বব্যাপী চিংড়ির জলজ চাষের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে, যা এই বিধ্বংসী ভাইরাল সংক্রমণের বিস্তার প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে শক্তিশালী জৈব নিরাপত্তা ব্যবস্থা, নজরদারি এবং গবেষণা প্রচেষ্টার গুরুত্ব তুলে ধরে।

Answer for বাগদার হোয়াইট স্পট রোগ দেখা দিলে করনীয় কী?